‘যা করেছি বেশ করেছি’ বললেন কবীর সুমন

সুমন

সঙ্গীতশিল্পী কবীর সুমনের বক্তব্যকে ঘিরে সপ্তাহ জুড়ে বিতর্কের ঝড় বয়ে যাচ্ছে কলকাতার মিডিয়াপাড়া থেকে রাজনীতির অঙ্গন পর্যন্ত। টেলিফোনে এক সাংবাদিককে ‘অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ’ করার ঘটনা ভাইরাল হয়ে যায়। সেই বিতর্কের জেরে ফেসবুকে ক্ষমা চেয়ে একটি পোস্ট করেন শিল্পী নিজেই। তবে ক্ষমা চাওয়া সেই পোস্টে অনুশোচনা প্রতিফলন নেই বলে মনে করেছেন অনেকে। চাপের মুখে বাধ্য হয়ে তিনি সেই পোস্ট করেছিলেন। সবার এই ধারণাকে সত্যিও প্রমাণ করলেন শিল্পী নিজেই।

গত সোমবার এবং মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) ফেসবুকে পরপর দুটি পোস্টের মাধ্যমে কবীর সুমন জানান, তার সেই কুৎসিত মন্তব্যের জন্য কোনো অনুশোচনা নেই। সোমবার রাতে একটি পোস্ট করে সুমন লিখেছিলেন, ‘ঢিল মারলে পাটকেল খেতে হয়। খেলাম। এখন বলছি সেদিন এক ‘কলারকে’ ফোনে যা বলেছি সে ব্যাপারে আমার মনে আর কোনো অনুশোচনা নেই। যদি পারেন আমাকে টার্গেট করুন, অন্য কাউকে না। শুধু আমি চাই না পুলিশের কাজ বাড়ুক।’

মঙ্গলবার সকালে ফেসবুকে আবার তিনি লেখেন, ‘কেন ক্ষমা চেয়েছিলাম তা বিশদ বলেছি। তার আগেপরে যা হয়ে চলেছে। ওটা ফিরিয়ে নিলাম। এবার বলছি, যা করেছি বেশ করেছি। যে যা পারো করে নাও।’ অনেকেরই ধারণা ছিল, প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার পর এই বিতর্কের ইতি টানলেন তিনি। কিন্তু সোমবার থেকে ফের বিস্ফোরক মন্তব্যের কারণে আবার তোলপাড় নেট দুনিয়া।

এর আগে গত ৩০ জানুয়ারি নিজের ফেসবুক পোস্টে কেন্দ্রের শাসকদলের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচারের একাধিক অভিযোগ তুলেছিলেন তিনি। বুঝানোর চেষ্টা করেছেন, ক্ষমাপ্রার্থী হলেও বিজেপির মতো সংখ্যালঘু বিদ্বেষী দল এবং তাদের ‘সমর্থনকারী’ টিভি চ্যানেল ও তার সাংবাদিককে গালাগাল করে কোনো গর্হিত অপরাধ তিনি করেননি। এর প্রেক্ষিতেই কলকাতাসহ বেশ কিছু প্রদেশ তার নামে উসকানিমূলক মন্তব্য ও সমাজের সম্প্রীতি নষ্টের অভিযোগ এনে এফআইআর দায়ের করা হয়।

এদিকে কবীর সুমনের সঙ্গে সাংবাদিকের কথোপকথন শোনার পর শিল্পীর পক্ষে-বিপক্ষে অনেকেই সরব হয়েছিলেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে। তবে এত বিতর্কের মধ্যেও শিল্পীর পাশে দাড়িয়েছেন সঙ্গীতশিল্পী রূপঙ্কর বাগচী এবং কবি শ্রীজাত বন্দ্যোপাধ্যায়।

শ্রীজাত

নিজের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে লাইভে এসে রূপঙ্করের বক্তব্য, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বিতর্কের কারণেই গায়ক সুমন গৌণ হয়ে গেছেন। তার শিল্পী-সত্তা নিয়ে নয়, বরং বিতর্ক নিয়েই সবচেয়ে বেশি আলোচনা চলে। যা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। লাইভের শেষভাগে কবীর সুমনের একটি গান গেয়ে শোনান তিনি।
শ্রীজাত বলেছেন, ‘‘কবীর সুমন নিজের একখানা গানে লিখেছিলেন, ‘বিরোধীকে বলতে দাও, বিরোধীকে বলতে দাও, তোমার ভুলের ফর্দ দিক’। বাঙালি বোধহয় শুনেও এসব গানের অর্থ উপলব্ধি করতে পারেনি। পারলে আজ তার এই হাঁড়ির হাল হতো না। আরেকটি গানের প্রথম লাইন মনে পড়ে যাচ্ছে, এর উত্তর হিসেবে। ‘তুমি গান গাইলে, বিশেষ কিছুই হলো না, যা ছিল আগের মতো রয়ে গেলো’। বিস্ময়করভাবে, এ-গানও সুমনেরই রচনা। কি মিষ্টি সমাপতন, না?’‘

এমন আরো সংবাদ

রিপ্লাই দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
আপনার নাম লিখুন

8 + seventeen =

সর্বশেষ বিনোদন