এটি তার ‘জীবনের সবচেয়ে কঠিন কাজ’

হ্যালি বেরি

কৃষ্ণাঙ্গ শিল্পী ও চলচ্চিত্রের প্রতি সম্মান জানাতে ‘সেলিব্রেশন অফ ব্ল্যাক সিনেমা অ্যান্ড টেলিভিশন’ আয়োজন করে আসছে মার্কিন ক্রিটিকস চয়েজ অ্যাসোসিয়েশন। গত ৬ ডিসেম্বর উৎসবের চতুর্থ আসরে ‘ক্যারিয়ার অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ জিতলেন মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গ তারকা হ্যালি বেরি।

গত বছর তার অর্জনের মুকুটে আরো একটি নতুন পালক যোগ হয়েছে। ৫৫ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী ক্যারিয়ারে প্রথমবার চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন, ‘ব্রুজড’ নামের এই চলচ্চিত্রে তিনি অভিনয়ও করেছেন। ভিডিও স্ট্রিমিং প্লাটফর্ম নেটফ্লিক্সে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেয়েছে।
ক্যারিয়ারের এমন পর্যায়ে এসে চলচ্চিত্র নির্মাণে হাত দেয়াটাকে অনেকটা সন্তান নেয়ার সিদ্ধান্তের মতো করেই দেখছেন তিনি। মার্কিন সংবাদমাধ্যম হলিউড রিপোর্টার-এর সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “কোনো এক বয়সে গিয়ে আমরা ভাবি, ‘এটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। এটা বোধহয় আমার জীবনের পরবর্তী পর্যায়।‘ আর আমার মনে হয় ক্যারিয়ারের ব্যাপারেও আমি এমনটাই ভেবেছি। আমি এটা করার পরিকল্পনা মাথায় নিয়ে কাজে নামিনি, কিন্তু এর তাগিদটা অনুভব করেছি।“

‘ব্রুজড’ চলচ্চিত্রের গল্প এক নারী মিক্সড মার্শাল আর্ট ফাইটারকে নিয়ে। চরিত্রটি ক্যারিয়ারে হোঁচট খেয়ে প্রাণপণ চেষ্টা করে আগের অবস্থান ফিরে পেতে। হ্যালি বেরি জানান, এই চরিত্রের মতোই চলচ্চিত্রটি নির্মাণে তারও প্রচণ্ড সংগ্রাম করতে হয়েছে। তিনি বলেন, “এটা আমার পেশাগত জীবনে করা সবচেয়ে কঠিন কাজ। এই চরিত্রটি অনেক ব্যাপ্ত, তাই এর পেছনে আমার প্রচুর সময় ও প্রস্তুতির দরকার হয়েছে, আবার প্রথম পরিচালনা হিসেবে এখানেও মনোযোগ দিতে হয়েছে। তবে সারাদিনের পরিশ্রমটা এমন কিছুর পেছনেই দিচ্ছিলাম যার ব্যাপারে আমার ভালোবাসা ও আবেগ আছে।’’ তিনি আরো জানান, মানুষের চরিত্রের গভীরে আলো-আঁধারিতে লুকিয়ে থাকা নানা খুঁটিনাটি পর্দায় তুলে আনতে তিনি ভালোবাসেন।

প্রায় ৩০ বছরের ক্যারিয়ারে হলিউডে বড় কিছু পরিবর্তন দেখতে পেয়েছেন হ্যালি বেরি, বিশেষ করে কৃষ্ণাঙ্গ কলাকুশলীদের অবস্থানে। তিনি বলছেন, “তখন (ইন্ডাস্ট্রিতে) কৃষ্ণাঙ্গ কাউকে দেখাই যেতো না। টেলিভিশন বা চলচ্চিত্রে আমি বা আমার গল্পের প্রতিফলন ছিল না। কিন্তু আজ ৩০ বছর পর আমি অনেক পরিবর্তন দেখছি। আমার চারপাশে কৃষ্ণাঙ্গ মানুষ দেখতে পাচ্ছি, আমাদের গল্প বলতে দেখছি। অগ্রগতি আসছে, তবে আমাদের আরো কাজ করার আছে।’’
২০০২ সালে ‘মনস্টার’স বল’ চলচ্চিত্রের জন্য একাডেমি অ্যাওয়ার্ড অস্কারে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার জেতেন হ্যালি বেরি। আজ পর্যন্ত তিনিই এই পুরস্কার জেতা একমাত্র কৃষ্ণাঙ্গ অভিনেত্রী। এতে তার কিছুটা আফসোস থাকলেও আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন।

বলছেন, “আমার পর কেউ আসেনি, এটা খুবই দুঃখজনক। তবে তাতে আমার কাছে এই অর্জনের মূল্য কমে যাচ্ছে না। আর আমি যখন আমার পরের (কৃষ্ণাঙ্গ) অভিনেত্রীদের দেখতে পাই যারা অল্পের জন্য পুরস্কার জিততে পারেনি, আমার মনে হয়, পুরস্কার থাকুক আর না-ই থাকুক, আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।’’

এমন আরো সংবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ বিনোদন